মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২, ২০১৯

মিশিগানে সপ্তমীতে ছিল উৎসব মুখর পরিবেশ : আজ মহাঅষ্টমী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২০১৯-১০-০৫ ২০:১০:২৩
image

হ্যামট্রাম্যাক : পূজার আনন্দে মাতোয়ারা উৎসবপ্রিয় সনাতন বাঙালি হিন্দুরা।  ধূপ-আগরবাতির গন্ধে আর শঙ্খ, ঘণ্টা আর কাঁসরের সঙ্গে ঢাকের শব্দের সঙ্গে ভক্তদের আরাধনায় সপ্তমীতে মিশিগানে ছিল উৎসবমুখর পরিবেশ। আজ শনিবার মহাঅষ্টমী। গতকাল শুক্রবার নবপত্রিকা প্রবেশ, স্থাপন, কল্পারম্ভ এর মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে সপ্তমী পূজা। বেলা বাড়ার সাথে সাথে পূণ্যার্থীরা অঞ্জলি নেয়ার জন্য এখানকার পূজামন্ডপ গুলোতে ভিড় করতে থাকেন। বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নৃত্যানুষ্টানে স্থানীয় শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন। সন্ধ্যায় আরতি ও রাতে ধুনোচি নাচে অংশ নেন সকলে।

আজ দিনের শুরুতে দুর্গাদেবীর মহাষ্টমাদি বিহিত পূজা ও সন্ধ্যায় সন্ধিপূজা। সন্ধি অর্থ মিলন। তাই প্রশ্ন জাগতে পারে অষ্টমীর বিশেষ এই পূজাকে সন্ধি পূজা কেন বলা হয় ? অষ্টমী ও নবমী তিথির মিলনের মুহুর্তে এই পূজা হয়ে থাকে। আর তাই এই পূজাকে হিন্দু শাস্ত্রে সন্ধি পূজা বলা হয়। তিথি শেষ হওয়ার আগের ২৪ মিনিট এবং নবমী তিথি শুরুর পরের ২৪ মিনিট মোট ৪৮ মিনিটের মধ্যে এই পূজা সম্পন্ন করতে হয়। হিন্দু শাস্ত্র মতে, এই সময় দেবী দুর্গা চন্ডিরূপ ধারণ করে অসুর রাজাকে বধ করেছিলেন। তাই এ সময় দেবী জাগ্রত হন। দেবীকে ১শ ৮টি নীলপদ্ম নিবেদন করে আরাধনা করা হয়। এতে দেবী প্রসন্ন হন। এই পূজা চলাকালে মন্ত্র জপ করলে মা দুর্গা মনের সব আশা পূরণ করেন। বিপদ আপদ ও রোগ ব্যাধি দূর করে দেন। এক মনে মায়ের আরাধনা করলে মায়ের ছেলেমেয়েরাও খুশী হন। তাই মা লক্ষ্মীর আশীর্বাদ পাওয়া যায়। মা লক্ষ্মী খুশি হলে সংসারে সুখ শান্তি বিরাজ করে, অভাব দূর হয়। অষ্টমীর পূজার সাথে  নিরামিষ ভোগতো আছেই। সন্ধি পূজা শেষে মঙ্গলারতি।   

গতকাল সপ্তমী পূজাতে এখানকার মণ্ডপে মণ্ডপে সকলের মাঝেই আনন্দের জোয়ার লক্ষ্য করা গেছে। দুপুর থেকেই পূজামণ্ডপগুলোয় দর্শনার্থীদের ভিড় বাড়তে থাকে। বাহারি পোশাকে আর অঙ্গসজ্জায় নিজেদের সাজিয়ে রাঙিয়ে উৎসব-আনন্দে মেতে উঠেছে শিশু-কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীরা। এছাড়া পূজামণ্ডপ গুলো ঝলমলে আলোকসজ্জায় রঙিন হয়ে ওঠে। মন্ডপে মন্ডপে শোনা যাচ্ছে উলুধ্বনি, শঙ্খ, কাঁসর ও ঢাকের বাদ্য। 

এদিকে শারদীয় দুর্গোৎসবের তৃতীয় দিনে আজ শনিবার ডেট্রয়েট দুর্গা টেম্পল  সন্ধ্যা ৭ টায় একক সঙ্গীতানুষ্টানে গান পরিবেশন করবেন জি বাংলার জনপ্রিয় শিল্পী সৌমেন নন্দী। বিকেলে পল্লবী, মিনাক্ষী, অনামিকা, সঙ্গীতা, স্নেহা, উর্মিলা, সুস্মিতা ও বাপ্পার অংশ গ্রহণে রয়েছে গীতি ও নৃত্যালেখ্য ‘এসো বাধিব সেই সুর’। এর পরপরই ‘বাজলো তোমার আলোর বেনু’  সমবেত সঙ্গীতানুষ্ঠানে স্থানীয় শিল্পীরা গান পরিবেশন করবেন। এছাড়াও রয়েছে রয়েছে বৈশালী দে কোরিওগ্রাফীতে রয়েছে  আকর্ষণীয় নৃত্যানুষ্টান। সবশেষে ধুনোচি নাচে অংশ গ্রহণ করবেন দুর্গা টেম্পল ইয়ুথ ফোরাম। 

ওয়ারেন সিটির মিশিগান কালীবাড়ীতে আজ বিকাল ৩ টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং রাত ৮ টায় আরতি পরে ধুনোচি নাচসহ অন্যান্য কর্মসূচী রয়েছে।
কমার্স চার্টার টাউনশিপের ওয়ালড লেক সেন্ট্রাল হাইস্কুলে বিচিত্রার শারদীয় দুর্গোৎসবে দ্বিতীয় দিনে আজ দুপুর ২ টায় নাটক জীবন্ত স্ট্যাচু, বিকাল ৪ টা ৩০ মিনিটে নৃত্য পরিবেশন করবেন শ্রেয়সী দে ও তাঁর সঙ্গীরা, সন্ধ্যা ৬ টায় আরতি, রাত ৮ টা ৩০ মিনিটে  কলকাতার বাংলা ব্যান্ডের সুরজিত ও তাঁর বন্ধুরা সঙ্গীত পরিবেশন করবেন।

বেভারলি হিলস সিটির বার্কশায়ার মিডল স্কুলে বিচিত্রা ইনকর্পোরেটেড দুর্গোৎসবের দ্বিতীয় দিন আজ বিকেল ৩ টায় বার্মিংহাম সিটির আর্ণেস্ট ওয়েষ্ট সেহাম হাইস্কুলে আয়োজন করেছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন কলকাতা থেকে আগত শিল্পী রুপঙ্কর বাগচী। শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে লিভোনিয়া সিটির আডালি ইস্ট স্টিভেনসন হাইস্কুল প্রাঙ্গনে রাত ৮ টা ৩০ মিনিটে স্বজন আয়োজিত আজকের সঙ্গীতানুষ্টানে বলিউড শিল্পী মনীষা কর্মকার সঙ্গীত পরিবেশন করবেন।


এ জাতীয় আরো খবর