শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯

ক্রিকেটে কাটল সংকট

  • ঢাকা প্রতিনিধি :
  • ২০১৯-১০-২৪ ০৭:০৩:৩৮
image

ঢাকা : দিনভর নানা নাটকীয়তার পর দাবি-দাওয়া নিয়ে ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে ক্রিকেটারদের আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার থেকে তারা ভারত সফরের জন্য ক্যাম্পে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিসিবির সঙ্গে বৈঠক শেষে গতকাল রাতে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন জাতীয় টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তিনি বলেন, আমাদের যা ডিমান্ড ছিল সব শুনে দ্রুততার সঙ্গে তা বাস্তবায়নের জন্য বোর্ড ডিরেক্টররাসহ বৈঠকের সবাই আশ্বাস দিয়েছেন। আমরা আশ্বস্ত হওয়ার পর সিদ্ধান্ত নিয়েছি প্রথম শ্রেণীর খেলোয়াড়রা মাঠে যাবেন আগামী শনিবার থেকে। আর আমরা ন্যাশনাল টিম ২৫ অক্টোবর থেকে ক্যাম্পে যাবো। ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণার মাধ্যমে দেশের ক্রিকেটে তিন দিন ধরে চলা অচলাবস্থা ও অনিশ্চয়তার অবসান হলো।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সাকিব বলেন, আমাদের বেশিরভাগ দাবি-দাওয়া বাস্তবায়নের পরই বলতে পারবো খুশি কি না। তবে আমরা আলোচনা নিয়ে খুশি। শুরুতে যে ১১ দফা দাবি উত্থাপন করেছিলেন ক্রিকেটাররা, তার ৯টিই মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন বিসিবি প্রধান। ক্রিকেটারদের সংগঠন কোয়াবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদত্যাগের সঙ্গে বিসিবির সম্পর্ক নেই বলে সেটি নিয়ে কথা বলেনি বোর্ড। আর দুইটির বেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলার দাবিটি কোনো ক্রিকেটারের প্রয়োজন হলে তখন বিবেচনা করা হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবি প্রধান। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সাংবাদিকদের বলেন, পারিশ্রমিক, অ্যালাউন্স যা যা সুনির্দিষ্টভাবে বাড়ানোর দরকার, তা আগামী দু’তিন দিনের মধ্যে দেখবো। আর অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য যে দাবি-দাবি দাওয়া রয়েছে, সেগুলোও আমরা বাস্তবায়ন করবো। তবে এগুলোতো এখনই সম্ভব নয়। আমরা দেশের সব জায়গায় একসঙ্গেই অবকাঠামোগত উন্নয়ন কার্যক্রম শুরু করবো। এর বাইরে যে দু’টি লিগ্যাল দাবি এসেছে আইনজীবীর মাধ্যমে, আমরা সে দু’টি নিয়ে কোনো কথা বলবো না। ওগুলো আমরা আসার সঙ্গে সঙ্গে সঙ্গে আমাদের লিগ্যাল টিমের কাছে পাঠিয়েছি। সেটা দেখে পরবর্তীতে সমাধানের চেষ্টা করবো।
এর আগে নিজেদের আগের ১১ দফা বাড়িয়ে ১৩-তে নেন ক্রিকেটাররা। গুলশানের একটি হোটেলে এ বিষয়ে ক্রিকেটারদের মুখপাত্র হিসেবে সাংবাদিকদের সামনে আসেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান। তিনি জানান, বিসিবি’কে ক্রিকেটারদের হয়ে ১৩টি দাবি একটি চিঠি আকারে দিয়েছেন। নতুন করে যোগ হওয়া দুটি দাবির একটি হলো বোর্ডের রাজস্বের ভাগ দিতে হবে ক্রিকেটারদের এবং নারী ক্রিকেট দলকেও দিতে হবে ন্যায্য ভাগ। পরে, জাতীয় টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান আশাবাদ ব্যক্ত করে জানান, বিসিবির সঙ্গে আলোচনায় বসলে সমস্যার সমাধান হবে। এরপরই আলোচনার জন্য ক্রিকেটাররা বিসিবিতে যান। আর আলোচনা শেষে সংবাদ সম্মেলনে ফলপ্রসূ আলোচনার কথা বলেন।
প্রসঙ্গত, মিরপুরে জাতীয় ক্রিকেট একাডেমি মাঠে গত সোমবার প্রায় ৬০ জন ক্রিকেটারকে সঙ্গে নিয়ে ধর্মঘটের ঘোষণা দেন সাকিব আল হাসান। এর প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার এক সুদীর্ঘ সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের এই আন্দোলনকে বিশেষ মহলের ষড়যন্ত্র, দেশের ক্রিকেটকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত বলে মন্তব্য করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। তার জবাবে গতকাল বুধবার গুলশানের একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটারদের মুখপাত্র হিসেবে ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান দাবিগুলো তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘কারো কোনোরকম ষড়যন্ত্র নয়, কারো ইন্ধনে তারা কাজ করছে না। কারো প্ররোচনায় তারা কাজ করছে না। তারা তাদের জীবন নিশ্চিত করতে চায়…অন্য কোনো পেশায় না গিয়ে তারা হাজারটা ঝুঁকি নিয়ে ক্রিকেট খেলছে। ১০-১৫ বছরে তাদের সারাজীবনের আয় করতে হয়।’ এ সময় ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বোর্ডের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি ক্রিকেটাররা। আজই (বুধবার) বোর্ডে যাবেন তারা। সংবাদ সম্মেলন শেষে নিজেদের মধ্যে আলোচনার পর বিসিবিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন আন্দোলনে নামা ক্রিকেটাররা। রাত ৯টার দিকে গুলশান থেকে মিরপুরে অবস্থিত বিসিবি কার্যালয়ে পৌঁছান তামিম। এরপর একে একে ভেতরে গেছেন সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, ইমরুল কায়েসরা। দিনভর নানা নাটকের পর সেখানেই একমোহনায় মিলে যায় ক্রিকেটার ও ক্রিকেট বোর্ড।

 


এ জাতীয় আরো খবর