শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯

আজ থ্যাংকস গিভিং ডে : ডেট্রয়েটে আর্ট ভ্যানের আয়োজনে বর্ণাঢ্য প্যারেড

  • নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২০১৯-১১-২৮ ১১:৪৫:৫৮
image

হ্যামট্রাম্যাক :  যুক্তরাষ্ট্রের ব্যতিক্রমী দিবসগুলোর মধ্যে থ্যাংকস গিভিং ডে অন্যতম। প্রতি বছর নভেম্বরের চতুর্থ বৃহস্পতিবার ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’ হিসেবে পালন করা হয়। আজ সেই ২৮ নভেম্বর বৃহষ্পতিবার। যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে  পালিত হবে থ্যাংকস গিভিং ডে। আমেরিকার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছুটির দিন। ‘থ্যাংকস গিভিং ডে'’ নামে এই দিনটি সরকারিভাবেও স্বীকৃত।
দিবসটি খুবই আড়ম্বরে উৎসব পাগল মার্কিনীরা পালন করে। সেই সঙ্গে এই উৎসবটিতে কোন ধর্মীয় আবরণে ঢাকা না থাকায় সব ধর্মের ইমিগ্রান্টরা আমেরিকার মূল ধারার মতো এই দিনটি পালন করে আসছে। থ্যাংকস গিভিং ডে-কে অনেকে আবার ‘দ্য টার্কি ডেও’ বলে থাকে। কারণ উৎসবকে ঘিরে টার্কি নামক এক জাতীয় পাখির মাংসের প্রাধান্য থাকে। টার্কিই  যেহেতু থ্যাংকস গিভিং ডে’র প্রধান খাদ্য। আর তাই বাংলাদেশীদের মধ্যেও এই দিনটি উদযাপনের রেওয়াজ শুরু হয়েছে। মিশিগানে গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশী মালিকানাধীন গ্রোসারী এবং লাইভ ফার্মে টার্কি বিক্রি শুরু হয়েছে। এই দিনের বিশেষ খাবার টার্কি দিয়ে আজ বাঙ্গালিদের ঘরে ঘরেও পরিবার পরিজন, বন্ধু বান্ধব নিয়ে আয়োজিত হবে থ্যাংকস গিভিং ডে লাঞ্চ কিংবা ডিনার পার্টি। 
এদিকে প্রতি বছরের মতো এবারও ডেট্রয়েটে আজ প্রদর্শিত হবে আর্ট ভ্যানের আয়োজনে ৯৩ তম বার্ষিক থ্যাঙ্কসগিভিং ডে প্যারেড। আজ সকাল পৌণে ৯টায় উডওয়ার্ড অ্যাভিনিউ এর কার্বি স্ট্রিট থেকে শুরু হবে এ প্যারেড।  ছোটদের তো বটেই, বড়দের জন্যও এই প্যারেড অত্যন্ত উপভোগ্য। প্যারেডে এই সময়ের বিশিষ্ট ও জনপ্রিয় চরিত্রের আদলে বেলুন তৈরী করা হবে। এসব বেলুনে হিলিয়াম গ্যাস ভরে শূন্যে ভাসিয়ে প্রদর্শন করা হবে। ৩ মাইল পথ অতিক্রম করে ডাউন টাউনে গিয়ে শেষ হবে এ প্যারেড। 
থ্যাংকস গিভিং ডে’র পরদিন থেকেই আমেরিকা জুড়ে খৃষ্ট মাসের কেনাকাটা শুরু হয়ে যায়। পরদিন শুক্রবারকে ব্লাক ফ্রাইডে বলা হয়ে থাকে। বড় বড় ডিপার্টমেন্ট ষ্টোর গুলো রাত ১২ টার খুলবে। কোন কোনটি আবার ভোর ৫টা বা ৬টায় খুলবে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন শপিং সেন্টার ও তার সামনের রাস্তা গুলো বর্ণাঢ্য লাইট দিয়ে সাজানো হয়েছে।
প্রথম কবে শুরু হয় এই দিবস
১৬২০ সালে 'মে ফ্লাওয়ার' নামের এক জাহাজে চড়ে ১০২ জন নানা ধর্মের মানুষ স্বাধীনভাবে ধর্মচর্চা করার জন্য ইংল্যান্ড ছেড়ে নতুন আশ্রয়ের সন্ধানে বের হয়েছিলেন। দুই-তিন মাস পর তারা ম্যাসাচুসেটস উপকূলে এসে থামেন। যাত্রীদের অনেকেই অর্ধাহারে ও শীতের কোপে অসুস্থ ও দুর্বল হয়ে পড়েছিল। তাদের মধ্যে যারা সুস্থ ছিলেন তারা জাহাজ থেকে তীরে এসে নামেন। ওখানেই তারা প্লিমথ নামে একটি গ্রাম গড়ে তোলেন। স্কোয়ান্তো নামের এক উপজাতি আমেরিকান ইন্ডিয়ানের সঙ্গে তাদের পরিচয় হয়। স্কোয়ান্তো তাদের নিজে হাতে শিখিয়ে দেয় কিভাবে কর্ন চাষ করতে হয় বা মাছ ধরতে হয় এবং কিভাবে মেপল গাছ থেকে রস সংগ্রহ করতে হয়।
১৬২১ সালের নভেম্বরে প্লিমথবাসী তাদের উৎপাদিত শস্য কর্ন নিজেদের ঘরে তুলতে পেরেছিল। কর্নের ফলন এত বেশি ভালো হয়েছিল যে, গভর্নর উইলিয়াম এ উপলক্ষে সব আদিবাসী এবং নতুন প্লিমথবাসীর সৌজন্যে ভোজের আয়োজন করেছিল। ওই অনুষ্ঠানে সবাই প্রথমে ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানান তাদের সুস্থভাবে বাঁচিয়ে রাখার জন্য ও এমন সুন্দর শস্য দান করায়। তারপর উপস্থিত সবাই সবাইকে ধন্যবাদ জানান সারা বছর একে অপরকে সাহায্য-সহযোগিতা করার জন্য। এই অনুষ্ঠানটি আমেরিকার প্রথম থ্যাংকস গিভিং ডে হিসেবে স্বীকৃতি পায়।
কবে প্রথম সরকারি ছুটি স্বীকৃতি পায়
১৮১৭ সালে নিউইয়র্কে সর্ব প্রথম ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’ আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারি ছুটির দিন হিসেবে স্বীকৃতি পায়। এর পর ১৮২৭ সালে বিখ্যাত নার্সারি রাইম ‘মেরি হ্যাড আ লিটল ল্যাম্ব’ রচয়িতা সারাহ যোসেফা উদ্যোগ নেন, যেন ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’কে জাতীয় ছুটির দিন হিসেবে ঘোষণা করা হয়। দীর্ঘ ৩৬ বছর তিনি একটানা প্রচারাভিযান চালান থ্যাংকস গিভিং ডে’র পক্ষে। শেষ পর্যন্ত ১৮৬৩ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন সারাহ যোসেফের আবেদন গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করেন এবং নভেম্বর মাসের শেষ বৃহস্পতিবারকে ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’ হিসেবে সরকারি ছুটির দিন ঘোষণা দেন।
ছুটি কেন পরিবর্তন হয়
১৯৩৯ সাল পর্যন্ত শেষ বৃহস্পতিবারই পালিত হচ্ছিল থ্যাংকস গিভিং ডে। কিন্তু ১৯৩৯ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট তখনকার অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে ছুটি এক সপ্তাহ এগিয়ে আনার ঘোষণা দেন এবং এরপর থেকে নভেম্বর মাসের চতুর্থ বৃহস্পতিবার ‘থ্যাংকস গিভিং ডে’ পালিত হয়। তবে আমেরিকায় বর্তমানে এ দিনটি ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সাথে পালিত হয় না। বরং এটি এখন পরিপূর্ণ বাণিজ্যিকভাবে পালন করা হয়। ব্যবসায়ীক স্বার্থকে হাসিল করার জন্য সমগ্র আমেরিকাজুড়ে ব্যবসায়ীরা নানান ধরনের ব্যবসা করে থাকে।
থ্যাংকস গিভিং ডে প্যারেড
১৯২৪ সালে প্রথম প্যারেড অনুষ্ঠিত হয় যা এনবিসি টেলিভিশনে সম্প্রচার করা হয়। ওই বছর ডিপার্টমেন্ট স্টোর মাসি’স এর প্রেসিডেন্ট হার্বার্ট স্ট্রস হারলেম থেকে হেরাল্ড স্কয়ারের মাসি’র স্টোর পর্যন্ত ছয় মাইলব্যাপী শোভাযাত্রা বের করেন। এতে হাতিসহ বিভিন্ন প্রাণীর সমাগম ঘটানো হয়। পরে এই শোভাযাত্রা আড়াই মাইলে নিয়ে আসা হয়।
টার্কি সবসময়ই খাবারের তালিকায় থাকে না
দোকানে বিক্রয় হয় বিশাল সাইজের টার্কি, আবার মার্কিনীদের প্রত্যেকের খাবারের প্লেট এদিন সাজানো থাকে টার্কি দ্বারা। থ্যাংকস গিভিং ডেতে আমেরিকার দোকান গুলোতে যেসকল পণ্য বিক্রয় করা হয় তার সব কিছুতেই থাকে টার্কির ছবি। ১৬২১ সালে ইন্ডিয়ানরা ৫টি হরিণ শিকার করেছিলেন এবং এরপর এটিও খাবারের তালিকায় আসে।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট কেন টার্কিকে ক্ষমা করেছিলেন ?
প্রেসিডেন্টরা সাধারণত এই দিনে একটি টার্কিকে ক্ষমা করে দেন। এটিকেএকটি ফার্মে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখানেএটি তার বাকি দিনগুলিতে বেঁচে থাকে। কিন্তু ১৯৮৯ সালে জর্জ এইচ ডাব্লিউ বুশ এই কাজটি করেননি। জানা গেছে, আব্রাহাম লিংকনের আমল থেকে ক্ষমা প্রথা চলে আসছে। তার ছেলে ট্যাড টার্কিকে ক্ষমা করার আহবান জানিয়ে চিঠি লিখেন। তিনি আরো লেখেন, অন্যান্য প্রাণীর মতো টার্কিরও বেঁচে থাকার অধিকার আছে।
ফুটবল খেলার ঐতিহ্য
প্রত্যেক থ্যাংকসগিভিং ডেতে লাখ লাখ মার্কিনী ডেট্রয়েটে ফুটবল খেলা দেখেন। ১৯৩৪ সাল থেকে এটা চলে আসছে। ডেট্রয়েটের লায়নস প্লে এই খেলার আয়োজন করে। এই দলটি বারবার জিতে আসছে। যদিও শুরুর খেলায় তারা হেরেছিল। ১৯৩৯ এবং ১৯৪৪ সাল বাদে সব বছরেই এই খেলা হয়। আবার ডেট্রয়েটে প্রতি বছর প্যারেডও হয়।

 


এ জাতীয় আরো খবর