সোমবার, নভেম্বর ৩০, ২০২০

বহুরূপী করোনা

  • ফারজানা চৌধুরী পাপড়ি :
image

ওয়ারেন : প্রায় দেড় মাসের কাছাকাছি। সবাই আমরা ঘরবন্দী। করোনা নামক ভাইরাসের কাছ থেকে একটি নতুন শব্দের সাথে পরিচিত হলাম “হোম কোয়ারেন্টিন”। অনেক সময় বলতে গিয়ে উল্টা পাল্টা করে ফেলি কারণ নতুন শব্দ জীবনে শুনি নাই।
আমার অনেক কষ্ট লাগে বাংলাদেশে যখন এই শব্দটি ব্যবহার করা হয়। গরীব যারা লেখাপড়া করে নাই, তাদের জন্য এই শব্দটির অর্থ বোঝাই কষ্টকর হয়ে পড়ে, সংবাদ মাধ্যম থেকে শুরু করে সকল সোসিয়াল মিডিয়া যখন এই শব্দ ব্যবহার করেন তখন ইচ্ছে হয় এই শব্দটি নিয়ে প্রতিবাদ করি। বলি আমরা বাংগালি। আমরা অন্য দেশের ভাষা বুঝিনা, আমাদেরকে “হোম  কোয়ারেন্টিন” না বলে গৃহবন্দি অথবা ঘরবন্দি থাকতে বলেন। দেড় মাস ঘরবন্দি থাকতে থাকতে সবাই আমরা ক্লান্ত। এখন আমার কাছে মনে হচ্ছে বিনোদনের একমাত্র জায়গাটি হচ্ছে ফেইসবুক।
করোনাভাইরাসের ক্লান্তিলগ্নে ঘরবন্দি দেড় মাসের মধ্যে ফেইসবুকে ঘটে যাওয়া বিনোদনগুলি এখন তুলে ধরছি- করোনা শুরু হবার পর বিশ্বের সবাই ভয়ে আতংকিত। শুনা গেল কিছুদিন পর লক ডাউন হয়ে যাবে অনেক শহর। মাছে- ভাতে বাংগালি আমরা। শুরু হলো কেনা-কাটার প্রতিযোগিতা। দোকান থেকে একের জায়গায় তিন বস্তা চাল কিনে রাখলাম। সাথে পিয়াজ, ডাল।  দুসপ্তাহ পড়ে দেখা গেল চাল-ডাল ঠিক আছে, কিন্তু  অনেকের ঘরের মধ্যে পিয়াজ রসুনে পাতা গজাতে শুরু করেছে।

বাংলাদেশের কোন কোন অঞ্চলের কিছু দোকানপাটে “বিদেশী প্রবেশ নিষেধ” সম্বলিত সাইন বোর্ডও সাটানো হয়। কিছুদিন পড়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণের নামে একটি সাবান চার জন, একটি কলা চারজন, এক মুটো চাল বারো জন মিলে গরীবদেরকে সাহায্য করলাম।পুরুষদের অনেককেই মাথা ন্যাড়া করতে দেখা গেছে ।এর পর দেখতে পেলাম করোনা নিয়ে গান-কবিতা। এরমধ্যে ভাইরাল হতে লাগলো চাল চোর আর তেল চোরদের ছবি। নেতা নেত্রীর মধ্যে ধান কাটার যুদ্ধ। আমাদের দেশে মহিলারা কখনো ধান কাটতে মাঠে যেতে দেখি নাই, করোনা সেই ছবিও আমাদেরকে দেখালো। এখন দেড় মাসের ঠিক এই মুহুর্তে দেখতে পাচ্ছি মহিলাদের মধ্যে সাত রং এর শাড়ী পরে ছবি। পুরুষদের কেউ কেই কার্পেটের উপর দাড়িয়ে পরিবার নিয়ে আলিফ লায়লার মতো এক দেশ থেকে অন্য দেশে ঘুরতে বের হয়েছেন।


 

এ জাতীয় আরো খবর