শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০

ডেট্রয়েটে বিক্ষোভ অব্যাহত, মঙ্গলবার গ্রেপ্তার ১২৭

  • সুপ্রভাত মিশিগান ডেস্কঃ
image

ছবি : মঙ্গলবার রাতে ডেট্রয়েটের আউটার ড্রাইভের কাছে গ্রেটিয়টে জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর প্রতিবাদে অংশ নেওয়া লোকদের কারফিউ ভঙ্গের কারণে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। (Photo : David Guralnick, The Detroit News)

ডেট্রয়েট : মিনেসোটায় কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডকে পুলিশের বর্বরোচিত হত্যার প্রতিবাদে ডেট্রয়েটে আজ বুধবার ষষ্ট দিনের মতো বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। হাজারো বিক্ষোভকারী মিছিল সহকারে ডেট্রয়েট ডাউনটাউন অভিমুখে এগুচ্ছে।   মঙ্গলবারের বিক্ষোভে  কোন সহিংসতা ছিল না। কিন্তু তারপরও শহরে বহু বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর কারণ হিসেবে কারফিউ ভঙ্গ করাকে উল্লেখ করা হচ্ছে।
মঙ্গলবার ১২৭ জন বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে যাদের মধ্যে ৬০ জন পুরুষ এবং ৬৭ জন নারী। পুলিশ জানিয়েছে, এদের মধ্যে ৪৭ জন ডেট্রয়েটের বাসিন্দা। ছয় জন রাজ্যের বাইরের। বাকিরা মেট্রো ডেট্রয়েটের। ডেট্রয়েট পুলিশ বিভাগের মিডিয়া বিষয়ক প্রধান সার্জেন্ট নিকোলে কার্কউড এই তথ্য জানিয়েছেন।
এর আগে শনিবার ৮৪ জন, রবিবার শতাধিক গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। সোমবার এই সংখ্যা কম ছিল। পুলিশ জানায়, সোমবার কারফিউ ভঙ্গ করার অভিযোগে ৪০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। পুলিশ আরো জানায়, কারফিউ ভাঙলে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে আগেই সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু কিছু মানুষ মেনেছেন, কিছু মানেননি। কেউ কেউ প্রতিবাদও করেছেন। তাদেরকেই নিরাপত্তা হেফাজনে নেওয়া হয়েছে। পুলিশ প্রধান জেমস ক্রেগ জানিয়েছেন, আমরা গ্রেপ্তার করতে চাইনি। কিন্তু বাধ্য হয়েই করেছি। তিনি বলেন, আমি চেয়েছিলাম, এমনটি হবে না। এটা যে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ ছিল তাও অস্বীকার করছি না। কিন্তু কারফিউকে তো আমাদের কার্যকর করতে হবে।
প্রতিবেশি ওয়ারেন ও ম্যাকম্ব কাউন্টিতে কোনো গ্রেপ্তার ছাড়াই প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়েছে। কিন্তু ১৫০ মাইল পশ্চিমে কালামাজুতে স্থানীয় কর্মকর্তারা ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েন করেন। সোমবার এখানে বড়ো ধরনের বিক্ষোভ ও সহিংসতা হয়। সেখানে বিক্ষোভ দমনে টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করা হয়। জননিরাপত্তা বিষয়ক প্রধান কারিয়ানে থমাস এসোসিয়েটেড প্রেসকে জানান, এটা আমাদের সম্প্রদায়ের জন্য ভাল সময় ছিল না। মঙ্গলবার ৭৬ হাজার বাসিন্দার শহরে ন্যাশনাল গার্ডের ৯০ সদস্যকে মোতায়েন করা হয়। মিশিগানের ন্যাশনাল গার্ডের মুখপাত্র ক্যাপ্টেন অ্যান্ড্রিউ লেটন বলেন, তারা সবাই শান্তিপূর্ণ অবস্থানে আছেন। তবে মধ্যরাতে তারা চলে যায়। অনুরোধের ফলে তারা এক রাত ছিলেন। রবিবার রাজধানী ল্যান্সিংয়ে ১২৫ জনকে মোতায়েন করা হয়েছিল। তারা এখন গ্র্যান্ড র‌্যাপিডসে অবস্থান করছেন। কালামাজুর জননিরাপত্তা বিভাগ এ বিষয়ে তাৎক্ষনিকভাবে কোনো মন্তব্য করেনি।

Source & Photo: http://detroitnews.com

 

 


এ জাতীয় আরো খবর