শনিবার, আগস্ট ১৫, ২০২০

চুনারুঘাটে প্রবাসে যাওয়া এক নারী নিখোঁজের ঘটনায় তোলপাড়

  • চুনারুঘাট প্রতিনিধি :
image

চুনারুঘাট, (হবিগঞ্জ) :  চুনারুঘাটে প্রবাসে যাওয়া এক নারী নিখোজের ঘটনায় তোলপাড় চলছে। মেয়ের বাবা বলেছেন, তার মেয়েকে পাচার করা হয়েছে। অপরদিকে আসামীরা বলছেন, সেই নারী এখন দেশে তার বাবার হেফাজতেই রয়েছে। বিষয়টি গড়িয়েছে আদালতে। আদালত এ ব্যাপারে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে পিবিআইকে নির্দেশ দিয়েছেন।
মামলা সুত্রে জানা যায়, উপজেলার মিরাশি ইউপি'র আমতলা গ্রামের মরম আলীর কন্যা সোমা আক্তারকে ঢাকার একটি ট্রাভেলস এর মাধ্যমে ২০১৯ সালের ৮ ডিসেম্বর সৌদির মনিফাহ নাফাহ জারী আল মুরোকী নামের এক মহিলার বাড়িতে চাকরির জন্য পাঠান বাবা। সোমা সেখানে গিয়ে চাকরিতে যোগ দেন। তার আকামা নাম্বার ৩০৪৯০৮৮৮২০। এখানে প্রায় ৫২ দিন অবস্থানের পর সোমা নিয়োগকর্তার বাড়ি থেকে নিখোজ হলে ২০২০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী সৌদির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়কে লিখিত ভাবে বিষয়টি জানান নিয়োগকর্তা মুরোকী। 
এদিকে মেয়ে নিখোজের বিষটি জানার পর সোমার বাবা মরম আলী ট্রাভেলস এজেন্সির স্থানীয় প্রতিনিধি কবির মিয়াসহ ৪ জনকে আসামী করে বিগত ১৭ ফেব্রুয়ারী হবিগঞ্জের মানব পাচার প্রতিরোধ দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা করেন। 
মামলার আসামী কবির মিয়া বলেন, সোমা আক্তার গত সপ্তাহে বাড়িতে এসেছেন। তার কাছে এর প্রমাণও আছে তাই নারী পাচারের বিষয়টি সম্পুর্ণ মিথ্যা এবং হয়রানীমুলক।
মামলার বিষয়ে স্থানীয় ইউপি'র প্রাক্তন ইউপি সদস্য মীর মানিক মিয়া বলেন, সোমা বাড়িতে এসেছে। মামলাটি আপোষে নিষ্পত্তি করা যায় কিনা চিন্তা ভাবনা চলছে।


এ জাতীয় আরো খবর