সোমবার, নভেম্বর ২৩, ২০২০

করোনায় বন্ধ হল সিঁদুর খেলা, তবে..

  • নিজস্ব প্রতিবেদক :
image

ডেট্রয়েট, ২৫ অক্টোবর : বাঙালির প্রাণের উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। আজ বিজয়া দশমী। বিজয়ার দিনে সিঁদুর খেলা মেয়েদের একটি বিশেষ অনুষ্ঠান। প্রতিবছর পূজাকে ঘিরে বর্ণাঢ্য আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় প্রাচীন এই সিঁদুর খেলা। এই আচারটি এখন দুর্গাপুজোর একটি অঙ্গ হিসেবে পরিচিত।  কিন্তু প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের কারণে এবার কোথাও হবেনা সিঁদুর খেলার আয়োজন। তাই বলে কি আর স্বামী-সন্তানের মঙ্গল কামনা বন্ধ থাকবে? সেজন্য ঘরোয়াভাবেই সিঁদুর খেলায় মেতে উঠবেন সনাতন ধর্মালম্বী নারীরা।


শারদীয় দুর্গাপূজার শেষ দিন অর্থাৎ দশমীর দিনে সর্বশেষ যে রীতিটি পালিত হয়, এর নাম “দেবী বরণ”। বিবাহিত নারীরা  তাদের প্রথাগত ও ঐতিহ্যবাহী কাপড়  পড়ে সিঁদুরসহ অন্যান্য উপাচার সহকারে এই ‘দেবী বরণ’ করে থাকেন। দেবীকে সিঁদুর ছোঁয়ানোর পর তারা একে অপরকে সিঁদুর মাখিয়ে দেন । অবিরাম ঢাকের বাদ্য, শঙ্খ আর উলুধ্বনির মধ্যে চলে সিঁদুর উৎসব। দুর্গাপূজার অঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে সিঁদুর খেলা। 


এই খেলা সম্পূর্ণভাবে উৎসব অন্তে আনন্দে অবগাহন। মিলনের, সম্প্রীতির আবহে উজ্জীবিত হওয়া। আর তাই, আজকের যুগে শুধু বিবাহিত নারীরাই নন, যার ইচ্ছে  সে-ই এতে মেতে উঠতে পারে। খুশির আসরে সবাইকে সাদরে ডেকে নেওয়াই তো বাঙালির আপন সংস্কৃতি।
সিঁদুর খেলার ইতিহাস অনেক প্রাচীন। মূলত দেবীবরণ শেষে নিজের স্বামীর মঙ্গল ও দীর্ঘায়ু কামনায় সিঁদুর খেলা করেন বিবাহিত মেয়েরা।  সিঁদুর (বা সিন্দূর) এক প্রকার রঞ্জক পদার্থ। এর রঙ লাল ।এটি শক্তি ও ভালোবাসার প্রতীক।  সাধারণত  বিবাহিত নারীর সিঁথিতে সিঁদুর পরেন। এবং কপালে টিপ আকারে দেন। হিন্দুধর্মে সিঁদুর বিবাহিতা নারীর প্রতীক। অবিবাহিত মেয়েরা সিঁথিতে সিঁদুর পরে না, কপালে সিঁদুরের টিপ পরে। বিধবাদের সিঁদুর ব্যবহার শাস্ত্রমতে নিষিদ্ধ। হিন্দুদের পূজানুষ্ঠানে সিঁদুর ব্যবহৃত হয়।

 


 

এ জাতীয় আরো খবর