সোমবার, নভেম্বর ২৮, ২০২২

শব্দকথা প্রকাশ করেছে উর্দুভাষার বিখ্যাত কবি মির্জা গালিবের কবিতার বই

  • নিজস্ব প্রতিবেদক :
image

ঢাকা, ১৫ অক্টোবর :  উপমহাদেশে উর্দুভাষার বিখ্যাত কবি মির্জা গালিবের কবিতার অনূদিত বই "গালিবের কবিতা" প্রকাশিত হয়েছে। বইটা প্রকাশ করেছে শব্দকথা প্রকাশনা সংস্থা। উর্দুভাষা থেকে অনুবাদ করেছেন বাংলাভাষার কবি অরণ্য আপন।
ভারতবর্ষে মোঘল-সম্রাজ্যের শেষ ও ব্রিটিশ শাসনের শুরুর দিকের একজন উর্দু এবং ফার্সি ভাষার কবি। সাহিত্যে তার অনন্য অবদানের জন্য তাকে দাবির-উল-মালিক ও নাজিম-উদ-দৌলা উপাধি দেওয়া হয়।  তার সময়কালে ভারতবর্ষে মোঘল সাম্রাজ্য তার ঔজ্জ্বল্য হারায় এবং শেষে ১৮৫৭ সালের সিপাহীবিদ্রোহ এর মধ্য দিয়ে ব্রিটিশরা পুরোপুরিভাবে মোঘলদের ক্ষমতাচ্যুত করে সিংহাসন দখল করে, তিনি তার লেখায় এ ঘটনা বর্ণনা করেছেন।
মির্জা আসাদুল্লাহ বেগ খান (১৭৯৭-১৮৬৯)। যিনি গালিব নামেই আমাদের কাছে বেশি পরিচিত,  তাঁকে এবং তাঁর সৃষ্টির সঙ্গে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই। উর্দু কাব্যজগতে তাঁর আসনটি সবচেয়ে উচ্চস্থানে, এ-কথা অনস্বীকার্য। তিনি একজন দার্শনিক কবি। গালিব জীবন ছেনে কবিতাকে রূপ দিয়েছেন। শব্দচয়ন আর ভাষা শাসনে তিনি ছিলেন জাদুকর। গালিব ছিলেন খুব রসবোধের কবি। তা-ই তিনি বলতে পেরেছিলেন, "চুমু দেওয়ার মতো ঠোঁট তোমার না থাকতে পারে কিন্তু কণ্ঠ তো আছে।" শব্দকে ভাষার জাদুতে বন্দি করতে তাঁর জুড়ি নেই এবং তার কবিতায় ক্ষিপ্র বোধের তীব্র প্রকাশ আছে। গালিব বলেন, "যখন বাঁচতে চেয়েছিলাম শত্রুর অভাব ছিল না /এখন মরতে চাই কিন্তু খুনি পাই না।"
কল্পনাবিলাস আর বাস্তববাদ–দুটো ধারাই হাত ধরাধরি করে পাশাপাশি চলেছে গালিবের কবিতায়। তিনি মানবমনের বিচিত্র অন্ধিসন্ধি খুব ভালো করে পাঠ করতে পেরেছিলেন। গালিব বলেন, "প্রিয়তমা এসেছে ঘরে, আমি একবার আমার প্রিয়তমার মুখের দিকে তাকাই আরেকবার ঘরটার দিকে।" 
গালিব ছিলেন চিরকাল ভালোবাসার কবি। তাঁর কবিতার ভিতরে গেলে আমাদের ভালোবাসার আঘাত স্পষ্ট হয়ে ওঠে। গালিব বলেন, "তুমি বলেছিলে আমার হৃদয়টি খুঁজে পেলেও সেটি আর ফেরত দেবে না; ইচ্ছা পূরণের জন্য, কোথায় হৃদয় হারাব বলো?" 
গালিবকে ধরা খুব কঠিন তবে ধরতে পারলে মজাই মজা। এ বইয়ের প্রচ্ছদ এঁকেছেন নির্ঝর নৈঃশব্দ্য। বইটার মলাটমূল্য ২০০ টাকা। রকমারি ডটকম সহ দেশের অভিজাত লাইব্রেরিতে বইটি পাওয়া যাচ্ছে।


এ জাতীয় আরো খবর