শুক্রবার, এপ্রিল ১৬, ২০২১

হাতের শাঁখা খুলে বিসিএস পরীক্ষা দিতে হলো মৌপিয়াকে

  • সুপ্রভাত মিশিগান ডেস্কঃ
image

চট্রগ্রাম, ২২ মার্চ : হিন্দু বাঙালি বিবাহিত নারীর এক অবিচ্ছেদ্য অলংকার শাঁখা। ধর্ম অনুযায়ী, বিয়ের পর শাঁখা পড়তে হয়। স্বামীর মৃত্যু শেষে সেই শাখা ভেঙে দেওয়া হয়। এজন্য একজন হিন্দু নারীর কাছে অলংকার শাখাঁ সিদুঁরই তার অহংকার। আর এই শাঁখা খুলেই বিবাহিত এক নারী পরীক্ষার্থীকে বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নিতে বাধ্য করা হয়েছে। গত  শুক্রবার (১৯ মার্চ) অনুষ্ঠিত বিসিএস পরীক্ষায় চট্টগ্রাম সরকারী পলিটেকনিক কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার পর কলেজ কর্তৃপক্ষ একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। 

মৌপিয়া রায় নামে ওই পরীক্ষার্থী জানান, শুক্রবার (১৯ মার্চ) বিসিএস পরীক্ষা দিতে তিনি চট্টগ্রাম সরকারি পলিটেকনিক কলেজে যান। হলে প্রবেশের আগে কলেজের শারীরিক শিক্ষা বিভাগের শিক্ষক মোহাম্মদ ইলিয়াস তাকে হাতের শাঁখা খুলে রাখার জন্য বলেন। তখন তিনি জানান, বিবাহিত হিন্দু মেয়েরা স্বামী বেঁচে থাকা পর্যন্ত এটি খুলতে পারে না। মৌপিয়া ধর্মীয় বাধ্য বাধকতার কথা বললেও কোন কথাই শুনতে চাচ্ছিলেন না শিক্ষক মোহাম্মদ ইলিয়াস। তিনি সাফ জানান, শাঁখা না খুললে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। অবশেষে নিরুপায় হয়েই মৌপিয়া শাঁখা খুলে পরীক্ষা হলে প্রবেশ করেন। তিনি জানান, এই অমানবিক কান্ডের জেরে  তিনি ঠিকমত পরীক্ষা দিতে পারিনি।’
মৌপিয়া সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করছেন। বিয়ে হয়েছে চট্রগ্রামে। এরপর থেকে চট্টগ্রামেই স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন মৌপিয়া। লেখাপড়ায় ভালো বলে শশুরবাড়ির লোকজনের অনুপ্রেরণায় বিসিএস পরীক্ষা দিতে গিয়ে এমন ব্রিবতকর পরিস্থিতিতে পড়েন তিনি। এ সম্পর্কে জানতে চাইলে সরকারি পলিটেকনিক কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন নাথ বলেন, এরকম একটা ঘটনায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। তবে বিষয়টি আমরা জেনেছি। আমরা শিক্ষার্থীর পরিবারের কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করেছি এবং চার সদস্যর একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।


এ জাতীয় আরো খবর