বুধবার, মে ১৮, ২০২২

ভালোবাসার টানে বাংলাদেশ থেকে ভারতে নাবালিকা, আপাতত ঠাঁই জেলে

  • সুপ্রভাত মিশিগান ডেস্ক :
image

কলকাতা, ১৮ জানুয়ারী : ভালোবাসার টানে দেশান্তর। তবে পৌঁছনো গেল না নিজের কাছের মানুষের কাছে। মাঝপথেই খলনায়ক হয়ে দাঁড়ালেন সীমান্তের পুলিশ। কথায় আছে প্রেম কখনও কোনো বাধা মানে না, মানে না সীমান্তের কাটা তারের সীমা রেখাও। ঘটলও তাই। প্রেমীকের সাথে দেখা করতে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ডদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে প্রেমের টানে সীমান্তের কাঁটাতারের বেড়া পেড়িয়ে এপারে আসতেই ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে আটক এক বাংলাদেশী যুবতী। গত শনিবার রাত্রে ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার জেলার দিনহাটা ব্লকের দীঘলটারী ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে। আটক ওই বাংলাদেশী যুবতির নাম আফসানা বিবি, বাড়ি বাংলাদেশের বগুড়া জেলায়।
সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর তরফে আজ তাকে সাহেবগঞ্জ পুলিশের হাতে তুলে দিলে পুলিশ ওই বাংলাদেশী যুবতীকে দিনহাটা মহকুমা আদালতে পাঠায়। তবে আদালতে তোলার আগে পুলিশ প্রথমে তাকে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে শারীরিক পরীক্ষার জন্য নিয়ে যায়। সেখান থেকেই তাকে দিনহাটা মহকুমা আদালতে নিয়ে আসা হয়। আদালতের বিচারক তাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন। এদিকে আদালতের বাইরে সংবাদ মাধ্যম তাকে ঘিরে ধরলে আফসানা মিমিব জানায়, সোশ্যাল মিডিয়ার মধ্যমে কোচবিহারের তুফানগঞ্জের এক যুবকের সাথে পরিচয়। তারপর ফোনে আলাপ থেকে প্রেম। যদিও পরিচয় মাত্র ক’মাসের কিন্তু তাদের মধ্যে গভীর ভালবাসা।
এদিকে তার বাড়ির থেকে তার বিয়ে অন্যত্র করার চেষ্টা চালাতেই সে প্রেমীকের টানে গত বৃহষ্পতিবার বগুড়ার বাড়ি থেকে কোচবিহারের উদ্দেশ্যে বেড়িয়ে পড়েছিল।যদিও এত সব কান্ডের মধ্যে ভারতীয় প্রেমীকের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ রেখে ও তার দেওয়া ডিরেকশন মত কঝচবিহারের সীমান্ত টপকে পৌছে গিয়েছিলেন। কিন্তু শেষ সময়ে দীঘলটারী সীমান্তে প্রহারত ১২৯ নম্বর ব্যাটিলিয়ন সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর জওয়ানদের হাতে ধরা পড়ে যাওয়ায় প্রেমীকের সাথে আর দেখা তো হলই না। উলটে কারাবাসের ভোগান্তিতে পড়তে হলো বাংলাদেশী ওই প্রেমীকাকে। জানা গেছে বিচারক তার জামিনের আর্জি খারিজ করে দেয়। তাহলে আপাতত বিচার বিভাগে হেফাজতে থাকতে হচ্ছে ওই নাবালিকাকে।
সূত্র : প্রথম কলকাতা


এ জাতীয় আরো খবর